শিশু পাচার প্রতিরোধ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে স্কুল ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত

পটুয়াখালী: জেলার সদর উপজেলায় সেহাকাঠী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিশু ও মানব পাচার প্রতিরোধ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মঙ্গলবার স্কুল ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ক্যাম্পেইন প্রোগ্রামটি পিসিটিএসসিএন এর পক্ষে কমিউনিটি পার্টিসিপেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট (সিপিডি) সোসাইটি ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (এসডিএ) এর স্থানীয় পর্যায়ের সহযোগীতায় আয়োজন করে।

এতে পটুয়াখালী সদরের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. হুমাউন কবির প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি কমিউনিটি পার্টিসিপেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট (সিপিডি) পিসিটিএসসিএন প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বকারী মো. শরীফুল্লাহ রিয়াজ পরিচালনা করেন।

বিদ্যালয়ের প্রায় তিনশত ছাত্র-ছাত্রীসহ, ম্যানেজিং কমিটির সদস্যবৃন্দ এবং শিক্ষকদের উপস্থিতিতে ক্যাম্পেইন প্রোগ্রামটি অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা মাধ্যামিক শিক্ষা অফিসার মো. হুমাউন কবির বলেন, আমাদের দেশের সরকার শিশু পাচার ও শিশু সহিংসতা বন্ধের জন্য জাতীয় হেল্পলাইন চালুসহ নানামূখী কার্যক্রম হাতে নিয়েছে কিন্ত এর যথাযথ প্রচার ও প্রয়োগের অভাবে আমরা এর সুফল পাইনা।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ”আমি শীঘ্রই প্রতিটি স্কুলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এর সঠিক প্রচার ও প্রসারসহ এর সুফল যাতে পেতে পারে তার জন্য আমার দপ্তরের মাধ্যমে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করব”।

অনুষ্ঠানে সেহাকাঠী ামাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. খলিলুর রহমান সভাপতির বক্তব্যে বলেন, সরকার শিশু পাচার বন্ধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করেছে। তিনি এর সঠিক বাস্তবায়নের মাধ্যমে শিশু পাচারসহ সকল সহিংসতা বন্ধে শিশুদের অংশগ্রহন ও সক্রিয় ভ’মিকা পালনের আহবান জানান।

তিনি শিশু পাচার প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম চলমান রাখা ও মনিটরিং করার জন্য এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দশম শ্রেনি থেকে মৌমিতা ইসলাম রাইসা ও ফেরদৌস আলমকে এ্যাম্বাসাডর নিয়োগ দেন।

শিশু রাইসা বলেন, শিশু হিসেবে শিশু সুরক্ষা পাওয়া আমাদের অধিকার। সরকার যাতে আমাদের শিশু সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আরো বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম হাতে নেয় এর জন্য আমরা কাজ করে যাব।

এছাড়া, স্কুল ক্যাম্পেইন প্রোগ্রামে শিশু পাচার প্রতিরোধ ও সচেতনতামুলক একটি ডকুড্রামা প্রদর্শন করা হয়।

সমাপ্ত/