মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখে বিজেপির নির্বাচনী স্লোগান ‘মোদি হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়’!

সম্প্রতি ভারতে লোকসভা নির্বাচনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় এসেছে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। এই নির্বাচনে দলটির নির্বাচনী স্লোগান ছিল ‘মোদি হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়।’ বিজেপির এই নির্বাচনী স্লোগান এবার খোদ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর মুখে শোনা গেল।  বুধবার ‘ইউএস-ইন্ডিয়া বিজনেস কাউন্সিল’-এর ‘ইন্ডিয়া আইডিয়া সামিট’-এ বক্তব্য রাখার সময় তিনি এই শ্লোগান উচ্চারন করেন।

চলতি মাসের শেষের দিকেই ভারতে আসছেন মার্কিন ‘সেক্রেটারি অব স্টেট’ তথা পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মজবুত করতেই তাঁর এই সফর। বুধবার ‘ইউএস-ইন্ডিয়া বিজনেস কাউন্সিল’-এর ‘ইন্ডিয়া আইডিয়া সামিট’-এ বক্তব্য রাখেন পম্পেও। ভারত-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের উপর জোর দিয়ে এদিন তিনি বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মোদি থাকলে সবই সম্ভব। ওই কথার উপর ভিত্তি করেই আমি আশা করব দুই দেশ এক নতুন দিগন্ত দেখবে।

সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচন নিয়ে পম্পেও বলেন, নির্বাচনের ফলাফল দেখে অনেকেই অবাক হলেও, আমি হইনি। আমি ও আমার টিম ভারতের রাজনৈতিক গতিবিধির উপর তীক্ষ্ণ নজর রাখছিলাম। ফলে মোদিই যে ফের ক্ষমতায় আসবেন তা আমাদের জানা ছিল। চা বিক্রেতার ছেলে থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে মোদি দেখিয়ে দিয়েছেন তিনি অন্য ধাতুতে গড়া। আজ তিনি বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী দেশের নেতা।

তবে দু’দেশের সম্পর্ক গোটাটাই যে মাধুর্যে ভরা নয়, তা বুঝিয়ে দিয়েছেনপম্পেও। প্রতিরক্ষা, বাণিজ্য-সহ একধিক ইস্যুতে দিল্লি ও ওয়াশিংটনের মধ্যে টানাপড়েন চলছে তা স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি। তবে একইসঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সে সব সমাধান করা যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম কিনতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ভারত। এই পদক্ষেপের ঘোর বিরোধিতা করছে যুক্তরাষ্ট্র। পাশাপাশি ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের নানা বিষয় নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট। যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা মোটর সাইকেলের ওপর শুল্ক কমিয়ে অর্ধেক করেছে ভারত। আগে একশ’ শতাংশ শুল্ক নেওয়া হত। এখন নেওয়া হচ্ছে ৫০ শতাংশ। কিন্তু তাতেও খুশি নন ট্রাম্প।